চিকিৎসা করাতে এসে খোদ সরকারি হাসপাতালের প্রতীক্ষালয় থেকেই টাকা চুরি গেল রোগীর পরিবারের 

 খবর এইসময় ,হাবড়া ,১৬ই জানুয়ারি :  অসুস্থ স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে এসে রাতে হাসপাতালের প্রতিক্ষালয় থেকেই চুরি গেল চার হাজার টাকা।  ঘুমন্ত অবস্থা থেকেই রুস্তম আলির মানিব্যাগ থেকে খোয়া গেছে চার হাজার টাকা। হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালের প্রতিক্ষালয় থেকে চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রোগীর আত্মীয়দের মধ্যে ।হাবড়া থানায় চুরির লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছেন রুস্তম।

 রুস্তম আলির বাড়ি উত্তর চব্বিশ পরগনার গাইঘাটা থানার অন্তর্গত জলেশ্বর এলাকায়।  পারিবারিক অশান্তির জেরে রুস্তমের স্ত্রী আজমিরা খান  বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন।রুস্তম অসুস্থ বিবিকে হাবড়া হাসপাতালে ভর্তি করেন সোমবার রাতে।হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন তার স্ত্রী। আর বাইরে আর পাচটা রুগির আত্মিয়র মতো  হাসপাতালের পতিক্ষালয়ে যান।  সোমবার রাত ১১টা নাগাদ কোনও ক্রমে একটু জায়গা পেয়ে শুয়ে পরেন রুস্তম । রুস্তম আলি জানান মঙ্গলবার ভোরে ঘুম ভাঙার পর সকালে চা খেতে গিয়েছিলেন পাশের একটি দোকানে। পকেটের মানিব্যাগ খুলে চায়ের দাম দিতে গিয়েই হতবাক হয়ে যান তিনি।মানিব্যাগে কিচ্ছু নেই।তিনি বলেন  স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য বাড়ি থেকে  নগদ চার হাজার টাকা নিয়ে এসেছিলাম।চুরি হয়ে গেছে ।তার সন্দেহ প্রতিক্ষালয়ে রাতে তার পাশেই শুয়ে থাকা সাদা চাদর গায়ে জড়ানো এক ব্যাক্তির দিকে। ভোরের আলো ফোটার আগে সেও বেপাত্তা। রুস্তমের সন্দেহের তির তার দিকেই।বিহারের প্রত্যন্ত গ্রামে  কাপড় ফেরি করেই দিন চালান  রুস্তম।তবে মাস তিনেক শীতের মন্দা বাজারের জন্য তিনি বাড়িতে চলে আসেন ।কোনও ক্রমে  দুই মেয়ে এবং স্ত্রীকে নিয়ে সংসার চলছিলো তার।  স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য আনা চার হাজার টাকা চুরি যাওয়ায় মহা বিপদে পরেছেন রুস্তম আলি।হাসপাতাল সূত্রে খবর রুস্তমের স্ত্রী আজমিরা এখন সুস্থ রয়েছেন।শেষ পর্যন্ত হাবড়া থানার পুলিশের দারস্থ হয়েছেন রুস্তম ।