দিলীপের হুঁশিয়ারি ! জীবিত মমতাকেই বাংলায় এনআরসি দেখতে হবে !

 

খবর এইসময়,ওয়েব ডেস্ক,12 সেপ্টেম্বরঃ নাগরিক পঞ্জি নিয়ে সরগরম হয়ে উঠছে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য-রাজনীতি। অন্যদিকে এনআরসি ইস্যু নিয়ে বৃহস্পতিবার তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মিছিলকে নিয়ে সরব হলেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ।এদিন তৃণমূল নেত্রীকে নিশানা করে দিলীপ ঘোষ বলেন, “এটা সরকার চলছে না সার্কাস চলছে? চাকরির ক্ষেত্রে যাঁরা পয়সা দিচ্ছেন তাঁরা চাকরি পাচ্ছেন। সরকারের বিরুদ্ধে আমরা বার বার রাস্তায় নেমেছি। সেই দেখেই মমতা আজ পথে নেমেছেন”। এখানেই থেমে থাকেননি রাজ্য বিজেপির সভাপতি। বঙ্গে এনআরসি করতে বাধা দেওয়া নিয়ে মমতার বক্তব্যর প্রেক্ষিতে দিলীপ বলেন, ” জিএসটি, তিন তালাক এবং ৩৭০ ধারা রদ সব কিছুরই বিরোধিতা করেছিলেন উনি । কিন্তু কিছুই লাভ হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর ক্ষমতা আমাদের জানা আছে। বাংলায় এনআরসি হবেই। বেঁচে থেকেই সেটা ওনাকে দেখে যেতে হবে। এটা দিলীপ ঘোষ বলে যাচ্ছে। সারা বাংলায় উনি আগুন জ্বালাচ্ছেন। কাশ্মীরের চেয়েও ভয়ংকর অবস্থা। তা নিয়ে হেঁটে কী হবে? দিলীপ ঘোষের স্পষ্ট মন্তব্য, “আমরা কাউকে তাড়াতে চাইছি না। বাংলাদেশ থেকে যে মুসলিম রোহিঙ্গারা এসেছেন তাঁরা যা ইচ্ছা তাই করছে এই রাজ্য। ১ কোটিরও বেশি মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজন এখানে এসেছেন। অনেকে আবার এখান থেকেই দিল্লি, চেন্নাই পাড়ি দিয়েছেন। আমরা সবাইকে চিহ্নিত করব। তবে যাঁরা ওপার বাংলায় সংখ্যালঘু, পীড়িত, তাঁদের ভারতে নাগরিকত্ব দেব আমরা”।পাশাপাশি ,এনআরসি নিয়ে মমতা বন্দ্যপাধ্যায় বলেন, ” আরেকটা বঙ্গভঙ্গ করার চেষ্টা করবেন না। বাংলাকে যাঁরা হিংসা করেন, তাঁরা জেনে রাখুন, বাংলা মাথা নত করবে না। আগুন নিয়ে খেলবেন না। আমরা সবাই রয়েছি দেশকে রক্ষা করার জন্য। আরেকবার ভারত ভাগ করতে দেব না’’।অন্যদিকে, এনআরসি-র পাশাপাশি দেশের আর্থিক পরিস্থিতি নিয়ে শ্যামবাজারের মিছিল থেকে এদিন মোদী সরকারকে নিশানা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বলেন, “রেল, সেল, বিএসএনএল সব বিক্রি করছে। এখান থেকে ব্যাঙ্কের হেড কোয়ার্টার তুলে নিয়ে যাচ্ছে। গাড়ি কিনছেন না কেউ এখন। ভারতবর্ষে হাহাকার চলছে। দেশে অর্থনৈতিক ধস নেমেছে, তা ধামাচাপা দিতে অন্য ইস্যু নিয়ে চর্চা করছেন”। মমতার এই বক্তব্যর প্রসঙ্গেই রাজ্য বিজেপির সভাপতির মন্তব্য, “ব্যাঙ্ক সংযুক্তি নিয়ে উনি আগে সারদা নারদার টাকার ফেরত দিন তারপর মোদী সরকার নিয়ে ভাববেন। ওঁর মাথায় তো সারদা নারদার চিন্তা থাকে তাই এসব বলছেন।”