মুর্শিদাবাদের ‘পেট কাটি মা’- এক অন্য মায়ের গল্প

 

অনির্বাণ সেন,6 অক্টোবর,রঘুনাথগঞ্জঃ গদাইপুরের দুর্গা প্রতিমা। জঙীপুর মহকুমার সবচেয়ে প্রাচীন দুর্গাপুজো। লোকশ্রুতি বহুকাল আগে অষ্টমীর সন্ধী পুজোর সময় এই মা একটি বাচ্চা মেয়েকে গিলে নেয়। পরে একসময় সারা বাড়ি জুড়ে যখন মেয়েটির খোঁজ শুরু হয়, তখন মেয়েটিকে কোথাও না পেয়ে বাড়ির সবাই দুর্গামার কাছে যায় মেয়েটিকে পাবার প্রার্থনা করতে। গিয়ে দেখে যে মেয়েটির পরণের পোষাক দুর্গামায়ের ঠোঁটে লেগে আছে। তখন বাড়ির সবাই বুঝতে পারে মেয়েটিকে মা দুর্গা খেয়ে নিয়েছে। তখন সবাইমিলে দুর্গা মায়ের পেট কেটে মেয়েটিকে বাড় করে আনে। সেই থেকেই এই মায়ের নাম হয়ে যায় ‘পেটকাটি মা’।
একসময় দশমীর বিকেলে প্রথমে এই মাকে গঙ্গারবুকে নৌকা করে ঘোরানো হতো। পরে এই মায়ের কাছে এলাকার অন্য দুর্গা প্রতিমাগুলো এলো বাইচ নাচ হতো। তারপর পেটকাটি মায়ের সাথে অন্যমায়েদের কোলাকুলি হলে পরে, প্রথমে পেটকাটি মায়ের বিসর্জন হতোছবি। তারপর অন্যপ্রতিমা গুলিকে বিসর্জিন দেওয়া হতো। এরপরেরি ছোটরা বড়োদের বিজয়ার প্রণাম করত। বড়োরা ছোটদের আশীর্বাদ করতো। এলাকায় শুরুহতো বিজয়ার শুভেচ্ছা বিনিময়।