” নিওফাইটস” 2019 উদ্বোধনে সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

 

মদনমোহন সামন্ত,01অক্টোবর,কলকাতা: সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। তবে শুধু সুন্দর মুখ নয়, সুন্দর মুখের সঙ্গে চাই দু’পাটি সুন্দর ঝকঝকে সাদা দন্তকৌমুদী। ওই 32টি দাঁত, চলতি কথায় বত্রিশ পাটি দাঁত সুন্দর স্বাস্থ্যকর থাকলে যেমন শরীরের সুস্থতা নির্দেশ করে, তেমনি তাদের অসুস্থতা নির্দেশ করে শারীরিক অসুস্থতার। এই 32 জনের সুস্থতা-অসুস্থতার ভার নিয়ে থাকেন যারা, সেই দন্তচিকিৎসকদের কাছে পৌঁছতেই হয় যখন নানা রকম হাসির বদলে যন্ত্রণায় “যাই রে, বাবা রে” অবস্থা হয়। এছাড়াও পোকা ধরা, পড়ে যাওয়া দাঁতের পূর্ণ প্রতিস্থাপন অথবা বিকল্প ব্যবস্থা ইত্যাদি করা যাদের কাজ সেই দন্তচিকিৎসকদের দাঁতের পোকা মাথায় উঠলে তা ঝেড়ে ফেলতে তারা আশ্রয় নিয়ে থাকেন নানা সৃষ্টিশীল কাজের। এমনই নমুনা দেখা গেল 1924 সালে ডাক্তার রফিউদ্দীন আহমেদ প্রতিষ্ঠিত কলেজ ও হাসপাতালে। যাকে সবাই চেনে ডাঃ আর আহমেদ ডেন্টাল কলেজ হাসপাতাল নামে।মওলা আলির মোড়ের কাছে শিয়ালদহে দু’টি ক্যাম্পাস মিলে চলা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রাচীনতম দন্তচিকিৎসার দিশারী সরকারি কলেজটির ছাত্র সংসদ, বিডিএস ও এমডিএস শিক্ষাক্রমের ছাত্রছাত্রীরা মিলে আজ পয়লা অক্টোবরে আয়োজন করেছিল নবীনবরণ অনুষ্ঠান “নিওফাইটস” 2019 । কলেজের পুরনো ক্যাম্পাসের প্রেক্ষাগৃহে প্রথম বর্ষের পড়ুয়াদের পরিবেশিত নাটক, দ্বিতীয় বর্ষের পড়ুয়াদের পরিবেশিত আবৃত্তি, গান ও নৃত্যের মালাশোভিত অনুষ্ঠানটি প্রদীপ জ্বালিয়ে উদ্বোধন করেন উত্তর কলকাতার সাংসদ সুদীপ বন্দোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন ডাঃ বিমলেন্দু সাহা – ডেপুটি সেক্রেটারি ,স্বাস্থ্য ভবন, অধ্যক্ষ ডাঃ তপন কুমার গিরি, অ্যালামনি অ্যাসোসিয়েশন সম্পাদক ডাঃ শুভ্র নন্দী, আই ডি এ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য শাখার সম্পাদক ডাঃ রাজু বিশ্বাস এবং অন্যান্য বিভাগীয় প্রধানেরা । তাঁর বক্তব্যে সুদীপবাবু জানান, রাজ্যে মুখের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতনতা অনেক বেড়েছে। এই সরকারের আমলে এখানে অনেক উন্নতি হয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, এখনকার পড়ুয়ারা ভাল মানের চিকিৎসক তৈরি হবেন।