বিজ্ঞান বিষয়ক মডেল প্রতিযোগিতায় জেলার ৭৫টি স্কুলের মধ্যে প্রথম পাঁচশোয়া রবীন্দ্র বিদ্যাপীঠ

 

সৌতিক চক্রবর্তী, 26সেপ্টেম্বর, বীরভূম: পশ্চিমবঙ্গ সরকার যুব কল্যাণ বিভাগ ও ক্রীয়া দফতরের উদ্যোগে পশ্চিমবঙ্গ ছাত্র যুব বিজ্ঞান মেলা (২০১৯) প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়ে গেল বীরভূম জেলার সিউড়ি শহরে। এই মেলা শুরু হয় গতকাল এবং শেষ হয় আজ। এই প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন,বীরভূম জেলা শাসক মৌমিতা গোধারা বসু সহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ। বীরভূম জেলা স্কুলে অনুষ্ঠিত এই প্রদর্শনীতে ৭৫ টি উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের পড়ুয়ারা অংশগ্রহণ করে। বিজ্ঞান চেতনা ও গবেষনাকে উৎসাহ দিতে রাজ্য সরকার এবং রাজ্য বিজ্ঞান মঞ্চ উল্লেখযোগ্য মডেলের জন্য সফল ও কৃতী ছাত্রদের পুরস্কারে ভূষিত করে। এর মধ্যে ‘এয়ার কুলার জ্যাকেট ফর ট্রাফিক পুলিশ’ নামে একটি মডেল তৈরি করে আকিব জাবেদ মল্লিক ও সেখ মহম্মদ কাহিপ নামে দুই ছাত্র প্রথম স্থান অর্জন করে। এরা বোলপুরের পাঁচশোয়া রবীন্দ্র বিদ্যাপীঠের ছাত্র বলে জানা গেছে। তারা আগামী নভেম্বর মাসে কোলকাতার নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে রাজ্য স্তরের প্রতিযোগীতায় জেলার প্রতিনিধিত্ব করবে। এছাড়াও এই বিজ্ঞান প্রদর্শনীতে দ্বিতীয় হয় কীর্ণাহার শিবচন্দ্র হাইস্কুল ও তৃতীয় হয় মুরারই কবি নজরুল শিক্ষায়তন।

পাঁচশোয়া রবীন্দ্র বিদ্যাপীঠের প্রথম স্থানাধিকারী ওই দুই কৃতি ছাত্রের সাহায্যকারী শিক্ষক ছিলেন ওই স্কুলের গণিতের শিক্ষক রাহুল চৌধুরী। তিনি এই মেডেলটির ব্যাপারে জানান,“আমাদের মডেলটির নাম ছিল সৌর শক্তির ব্যাবহারে শীততাপ জ্যাকেট। এই মডেলের মূল ভাবনাটা হচ্ছে, ট্রাফিক পুলিশ বা সৈন্যরা যখন রোদে দাঁড়িয়ে থাকে তখন ওদের পিঠে যদি সোলার প্যানেল লাগানো হয় তাহলে ওই প্যানেল সৌরশক্তি সঞ্চয় করবে। ও একটা ব্যাটারিতে এসে জমা হবে। সেই সঞ্চিত বিদ্যুৎ থেকে একটা এয়ার কুলার চলবে। তাতে ট্রাফিক পুলিশ বা সৈন্যরা রোদে দাঁড়িয়ে কাজ করলেও তাদের গরমের অনুভূতি হবে না।”